নবম সালানা জলসার আয়োজন করেছে আহমদীয়া মুসলিম জামা’ত জ্যামাইকা


মিসবাহ আনমোল তারিক, জ্যামাইকা প্রতিনিধি, আল্‌ হাকাম

গত ২৫ ও ২৬ নভেম্বর, ২০২৩ আহমদীয়া মুসলিম জামা’ত জ্যামাইকা তাদের নবম সালানা জলসার আয়োজন করে।

দূরদূরান্ত থেকে আগত স্বেচ্ছাসেবীদের জলসা গাহ্‌ প্রস্তুতির মাধ্যমে সালানা জলসার (বার্ষিক সম্মেলন) প্রস্তুতি কয়েক সপ্তাহ আগেই শুরু হয়েছিল। এ বছর ওয়াকফ--আরজীর বরকতময় প্রকল্পের আওতায় কানাডা থেকে ছয় জন খোদ্দাম আমাদের সাথে যোগ দিয়েছেন। এবারের জলসা সালানার প্রধান অতিথি ছিলেন জামা’ত-এ-আহমদীয়া বেলিয-এর সভাপতি ও মিশনারী-ইন-চার্জ মাওলানা আরসালান ওয়ারাইচ সাহেব।

মাওলানা আরসালান ওয়ারাইচ সাহেব শুক্রবারে জুমুআর নামাজের ইমামতি করেন এবং খুতবাতে তিনি সালনা জলসার গুরুত্ব এবং এর সাথে সম্পর্কিত দোয়ার উপর জোর দেন। এরপর দুপুরের খাবারের আয়োজন করা হয়।

শনিবার যোহর ও আছরের নামাজের পর অনুষ্ঠিত হয় সালানা জলসার বিশেষ অধিবেশন। আহমদীয়া মুসলিম জামা’ত, জ্যামাইকার সভাপতি ও মিশনারী-ইন-চার্জ মাওলানা তারিক আজিম সাহেব উদ্বোধনী বক্তব্য প্রদান করেন এবং অতিথিদের উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান। পরবর্তীকালে,  মাওলানা আরসালান ওয়ারাইচ সাহেবের বক্তব্যের বিষয়বস্তু ছিল “ক্যারিবিয়ানে আমাদের মুসলিম পরিচয়”। তিনি সদস্যদের সক্রিয়ভাবে তাদের বিশ্বাস অনুশীলন করতে উত্সাহিত করেন এবং বেলিয জামা’তের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরেন, যাতে জ্যামাইকা জামা’ত তা থেকে বিভিন্ন ধারণা গ্রহন করতে পারে।

অতঃপর, একটি সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর পর্ব অনুষ্ঠিত হয় এবং অতিথিদেরকে মধ্যাহ্ন ভোজ পরিবেশন করা হয়।

সালানা জলসার রবিবারের মূল অধিবেশন সকালে মাওলানা আরসালান ওয়ারাইছ সাহেবের সভাপতিত্বে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হয়। এরপর মহানবী (সা.)-এর প্রশংসায় আরবি কাসিদা পাঠ করা হয়।

“যুবকদের সংস্কার ছাড়া জাতির সংস্কার করা যায় না’ – এর উপর জোর দিয়ে মাওলানা তারিক আজিম সাহেব স্বাগত বক্তব্য রাখেন। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি চমৎকার দৃষ্টান্ত স্থাপন করে নবীরা কীভাবে স্থায়ী পরিবর্তন এনেছিলেন তা বোঝানোর জন্য মহানবী (সা.) এবং পূর্ববর্তী কিছু নবীদের জীবনের গল্প উল্লেখ করেন।

একজন মুয়াল্লিম, গোলাম আহমদ সাহেব “উৎকৃষ্ট যুবকদের লালন-পালনে পিতামাতার ভূমিকা” বিষয়ে বক্তৃতা প্রদান করেন এবং আহমদ ইব্রাহীম ফরসন সাহেব “শান্তি নিশ্চিত করার জন্য ইসলামিক দৃষ্টিভঙ্গি” বিষয়ে বক্তৃতা করেন।

এরপর মাওলানা তারিক আজিম সাহেব জলসা সালানায় অংশগ্রহণকারীদের জন্য হযরত মির্যা মসরূর আহমদ, খলীফাতুল মসীহ্‌ আল্‌-খামেস (আই.)-এর বিশেষ বাণী পাঠ করেন, যেখানে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়।

মেয়র নরম্যান স্কট, ডা. কার্ট ওয়াউল, মিস্টার লিন্টন ওয়েয়ার, মিসেস লোরেন স্পেন্সার জ্যারেট, অ্যান্ড্রু হ্যানসেল এবং মিসেস টেনিশ গ্রান্ট-সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিদের কিছু কথা বলার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল।

মাওলানা আরসালান ওয়ারাইচ সাহেব “যুবকদের সংস্কার ছাড়া জাতির সংস্কার করা যায় না” শীর্ষক সমাপনী বক্তৃতা প্রদান করেন, ভবিষ্যত নেতা হিসেবে তরুণদেরকে তাদের ভূমিকা উপলব্ধি করতে অনুপ্রাণিত করেন।

২২ জন ব্যক্তিকে তাদের পড়া-লেখা, খেলাধুলা এবং সামাজ-সেবাতে বিভিন্ন অর্জনের জন্য সম্মাননা দেওয়া হয়।

আরসালান ওয়ারাইচ সাহেব দোয়ার মাধ্যমে অধিবেশনের সমাপ্ত করেন, এরপর প্রতিশ্রুত মসীহ্‌র অতিথিদেরকে মধ্যাহ্ন ভোজ প্রদান করা হয়।

আল্‌ হাকাম (https://www.alhakam.org/jamaat-e-ahmadiyya-jamaica-holds-its-9th-jalsa-salana/)