আহমদীয়া মুসলিম জামা’ত, গিনি-বিসাউ এ সালনা জলসা অনুষ্ঠিত


জাহিদ আহমদ ভাট্টি, মিশনারি, গিনি-বিসাউ

গত ২৯-৩১শে ডিসেম্বর ২০২৩ তারিখে আহমদীয়া মুসলিম জামা’ত গিনি-বিসাউ রাজধানী বিসাউতে তাদের ১৩তম সালানা জলসার আয়োজন করে।

জলসার উদ্বোধনী দিনটি তাহাজ্জুদ নামাযের মাধ্যমে শুরু হয় এবং ফজরের নামাযের পর পবিত্র কুরআনের দরসের মাধ্যমে কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর মিশনারি ইনচার্জ আহসান মেমন সাহেব এবং এলাকার প্রশাসক পতাকা উত্তোলন করেন।

পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত ও প্রতিশ্রুত মসীহ্‌ ও ইমাম মাহদী হযরত মির্যা গোলাম আহমদ (আ.)-রচিত আরবী কাসিদার মাধ্যমে জলসার অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপর আগত অতিথিগণ তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করেন। মিশনারি ইনচার্জ তার উদ্বোধনী ভাষণে জলসার তাৎপর্য ও উদ্দেশ্যের উপর জোর দেন। দিনটি শেষ হয় মাগরিব ও এশার নামাযের মাধ্যমে। সবশেষে আগত অতিথিদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মাধ্যমে একটি প্রশ্নোত্তর পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

দ্বিতীয় দিনের অধিবেশন সকাল ১০টায় পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত ও নযম পরিবেশনের মাধ্যমে শুরু হয়। এরপর “ হযরত মুহাম্মদ (স.): শান্তির দূত”, “মসীহ্‌ ও মাহদীর আগমন” এবং “বিশ্ব সংকট ও শান্তির পথ”- বিষয়ের উপর বক্তব্য উপস্থাপন করা হয়।

তৃতীয় অধিবেশনে “আহমদীয়া ইসলাম কি?”, “শান্তি ও ঐক্যের উৎস হিসেবে খিলাফত” এবং “আর্থিক ত্যাগের মাধ্যমে প্রকৃত তাকওয়া অর্জন” শীর্ষক বক্তৃতা অন্তর্ভুক্ত ছিল। এরপর মাগরিব ও এশার নামায হয় এবং আগের দিনের প্রশ্নোত্তর পর্ব চলতে থাকে।

মুসলিম টিভি আহমদীয়া (MTA) -এর মাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচারিত সমাপনী অধিবেশনের মাধ্যমে জলসার সমাপ্তি হয়।

জাতীয় টিভি, একটি সংবাদপত্র ও আটটি রেডিও চ্যানেল জলসা নিয়ে প্রতিবেদন করায় এই অনুষ্ঠানটি ব্যাপক মিডিয়া কভারেজ অর্জন করে। এর ফলে জামা’তের বার্তা প্রত্যন্ত অঞ্চলে পর্যন্ত পৌঁছাতে সক্ষম হয়। ফলস্বরূপ, সেখানকার একটি গ্রামের সদস্যরা আহমদী মুসলিম জামা’তে যোগদানের ইচ্ছা প্রকাশ করেন এবং আহমদীয়াতকে সত্য ইসলাম হিসাবে স্বীকৃতি দেন।

উক্ত জলসায় ১৭৫ জন সরকারি কর্মকর্তা, প্রতিনিধি, প্রশাসক, পুলিশ ও নিরাপত্তা প্রধান এবং বিভিন্ন এলাকার নেতৃবৃন্দসহ মোট ৪৫০০ জন ব্যক্তি অংশগ্রহণ করেন। এখানে উল্লেখ্য যে, এই জলসায় ৬৪২ জন বয়াত গ্রহণের মাধ্যমে আহমদীয়া মুসলিম জামা’তে যোগদান করেন, আলহামদুলিল্লাহ।

আল্‌ হাকাম (https://www.alhakam.org/jalsa-salana-2023-held-in-guinea-bissau/)