মাল্টায় আহমদীয়া মুসলিম জামা’তের ৫ম সালানা জলসা অনুষ্ঠিত


লাইক আহমেদ আতিফ, প্রেসিডেন্ট, আহ্‌মদীয়া মুসলিম জামা’ত, মাল্টা

আহ্‌মদীয়া মুসলিম জামা’ত, মাল্টা গত ১৯ নভেম্বর, ২০২৩ তারিখে তাদের পঞ্চম সালানা জলসার আয়োজন করে। এই জলসা উপলক্ষে হযরত মির্যা মসরূর আহমদ, খলীফাতুল মসীহ্‌ (আই.) বিশেষ বাণী পাঠান। এবারের জলসার মূল প্রতিপাদ্য ছিল “মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) – মানবতার সর্বোত্তম আদর্শ”।
মাল্টার মিসিদাতে জামা’ত-এর কেন্দ্রে সালানা জলসা অনুষ্ঠিত হয়। জলসা শুরু হওয়ার আগের দিন, ১৮ নভেম্বর, অনুষ্ঠানস্থল প্রস্তুত করা হয়েছিল এবং মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর বরকতময় জীবন সম্পর্কিত ব্যানার দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছিল।
১৯ নভেম্বর, ২০২৩ পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত এবং উর্দু নযমের মাধ্যমে সালানা জলসার কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর হযরত খলীফাতুল মসীহ্‌ (আই.) এর বিশেষ বাণী পাঠ করা হয়। হুযূর (আই.) তাঁর বার্তায় জামা’তের সদস্যদেরকে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জীবনের প্রতিটি দিক অনুসরণ ও প্রচার করার নির্দেশ দিয়েছেন; তাঁর (সা.) প্রতি ক্রমাগত দুরূদ পাঠ করতে; বয়‘আতের শর্তগুলো পূরণ করতে এবং পরিবার ও সন্তানদেরকে সাথে নিয়ে নিয়মিত এমটিএ দেখার জন্য নির্দেশনা দেন। হুযূর (আই.) বলেছেন:
“আমি আপনাদেরকে স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি যে, আপনারা প্রতিশ্রুত মসীহ্‌ (আ.) এর হাতে যে সকল শর্তে বয়াত করেছেন তা পূরণ করতে সচেষ্ট হন, এবং সেই উচ্চ আধ্যাত্মিক ও নৈতিক মানগুলি অর্জন করতে সচেষ্ট হন, যা তিনি তাঁর জামা’তের সদস্যদের কাছ থেকে আশা করেছিলেন এবং যাতে আপনারা সকলেই অনুকরণীয় আহমদী মুসলমান হতে পারেন।”
দু’টি অধিবেশনে জলসা অনুষ্ঠিত হয়। বক্তৃতাগুলি ইংরেজি এবং উর্দু, উভয় ভাষায় প্রদান করা হয়েছিল, যেমন, “কুরআন এবং ধার্মিক জীবনের নীতিমালা”, “দোয়া: ইসলামের একটি গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভ”, “সোশ্যাল মিডিয়া এবং বস্তুবাদের যুগে সঠিক দিকনির্দেশনা”, “খিলাফত-এ-আহ্‌মদীয়া এবং আমাদের দায়িত্ব”, “আল্লাহ্‌র পথে ব্যয় করা, আল্লাহ্‌র নৈকট্য অর্জনের একটি মাধ্যম” এবং “প্রতিশ্রুত মসীহ্‌ (আ.)-কে মান্য করার গুরুত্ব?”
সমাপনী ভাষণে, আমি (লাইক আহমেদ আতিফ, প্রেসিডেন্ট, আহ্‌মদীয়া মুসলিম জামা’ত, মাল্টা) স্বয়ং জামা’তের সদস্যদেরকে আহমদী মুসলমান হিসেবে তাদের দায়িত্বের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করি, মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর বরকতময় চরিত্রের কথা বলি এবং বলি যে, সত্য ও অনুকরণীয় আহমদী মুসলমান হওয়ার জন্য এবং আল্লাহ্‌র নৈকট্য অর্জনের জন্য এটির প্রয়োজনীয়তার কথা। আরও বলি, মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে ভালবাসা এবং জীবনের প্রতিটি পদক্ষেপে তাঁর মহৎ চরিত্র অনুসরণ করা আমাদের কর্তব্য।
প্রথম অধিবেশন শেষে, একটি আকর্ষণীয় প্রশ্নোত্তর পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। দোয়ার পর জোহর ও আছরের নামাজ এবং মধ্যাহ্নভোজের মাধ্যমে জলসা সালানা শেষ হয়।

আল্‌ হাকাম (https://www.alhakam.org/5th-jalsa-salana-held-in-malta/)