আহ্‌মদীয়া মুসলিম জামা’তের বিশ্ব-প্রধান ও পঞ্চম খলীফাতুল মসীহ্‌, আমীরুল মু’মিনীন হযরত মির্যা মসরূর আহমদ (আই.) বিভিন্ন সময়ে তাঁর চিঠিপত্র এবং এম.টি.এ (MTA)-এর বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ইসলামের মৌলিক বিষয়াদি ও অন্যান্য বিষয়ে সম্পর্কে যেসব গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা প্রদান করেছেন তার মধ্য হতে কিছু বিষয় সর্বসাধারণের কল্যাণার্থে আল ফজল ইন্টারন্যাশনালে প্রকাশ করা হচ্ছে।

সংকলক - জহির আহমদ খান, লন্ডনস্থ প্রাইভেট সেক্রেটারী অফিসের রেকর্ড বিভাগ | ভাষান্তর – আহমদ তারেক মুবাশ্বের

এসব নির্দেশনা ওয়েবসাইটে প্রকাশের ক্ষেত্রে কোনো প্রকার ত্রুটি-বিচ্যুতি হলে তার দায়ভার আহ্‌মদীয়া বাংলা টীম গ্রহণ করছে।

(ঋতুস্রাবের) বিশেষ দিনগুলোতে নারীদের পবিত্র কুরআন স্পর্শ করা, পাঠ করা এবং কম্পিউটার অথবা আই প্যাড ইত্যাদি দেখে কুরআন পাঠ করা সম্পর্কে এক ব্যক্তি বিভিন্ন আলেম-ওলামা ও ফিকাহ্‌বীদদের উদ্ধৃতির আলোকে একটি গবেষণা হুযূর আনোয়ার (আই.)-এর সমীপে প্রেরণ করে এই ব্যাপারে তাঁর কাছে নির্দেশনা কামনা করেন।


হুযূর আনোয়ার (আই.) তাঁর ৫ই অক্টোবর, ২০১৮ তারিখের পত্রে এর নিম্নোক্ত উত্তর প্রদান করেন:
হুযূর (আই.) উত্তরে বলেন, “এ বিষয়ে ওলামা এবং ফিকাহ্‌বীদদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে; আর ধর্ম-বিশারদরাও নিজেদের কুরআনের জ্ঞান বা বুৎপত্তি মোতাবেক এ সম্পর্কে বিভিন্ন মতামত প্রদান করেছেন।
পবিত্র কুরআন, মহানবী (সা.)-এর হাদীস এবং প্রতিশ্রুত মসীহ্ (আ.)-এর অমৃতবাণীর আলোকে এ সম্পর্কে আমার মতামত হলো, ঋতুস্রাবের দিনগুলোতে নারীদের পবিত্র কুরআনের যেসব অংশ মুখস্ত আছে তা তারা যিক্‌র ও আযকার হিসেবে মনে মনে পুনরাবৃত্তি করতে পারে। এছাড়া বিশেষ প্রয়োজনে কোন পরিস্কার কাপড় দিয়ে পবিত্র কুরআন স্পর্শও করতে পারে। কাউকে উদ্ধৃতি ইত্যাদি বলার জন্য অথবা বাচ্চাদের কুরআন পড়ানোর জন্য কুরআনের কোন অংশ পড়তেও পারে, কিন্তু (সাধারণ দিনের মত) রীতিমত কুরআন পাঠ করতে পারবে না।
একইভাবে, এদিনগুলোতে মহিলাদের কম্পিউটার ইত্যাদিতেও, যেখানে বাহ্যত তাকে কুরআন স্পর্শ করতে হয় না- রীতিমত কুরআন পড়ার অনুমতি নেই। কিন্তু বিশেষ কোনো প্রয়োজনে, অর্থাৎ, উদ্ধৃতি খুঁজে বের করার জন্য অথবা কাউকে কোনো উদ্ধৃতি দেখানোর জন্য কম্পিউটার ইত্যাদির মাধ্যমে পবিত্র কুরআন থেকে লাভবান হতে পারে; এতে কোন সমস্যা নেই।”

আল্ ফযল ইন্টারন্যাশনাল (https://www.alfazl.com/2020/11/01/23968/)

ঋতুবতী